আইনস্টাইনের ব্রেনে ওমেগা সাইন!

আইনস্টাইনের ব্রেনে ওমেগা সাইন!

The brain: The Story of Yourself, part:3

Thomas Harvey

২৫ বছর বয়সের মধ্যেই শিশু ও কিশোরদের মস্তিষ্কের ট্রান্সফরমেশন শেষ হয়ে যায়। আপনি ও আপনার ব্যাক্তিত্বের টেকটনিক শিপ্ট সমাপ্ত হয়, মস্তিষ্ক এখন পুরোপুরি উন্নত। ২৫ বছর সম্পর্ন হওয়ার আগে একজন ব্যক্তি তার নিজেকে পরিপূর্ণভাবে খুঁজে পায়না, হারিয়ে থাকে, গঠিত হয়না স্থিতিশীল ব্যক্তিত্ব। আপনি এখন ভাবতে পারেন যে, আপনি কে সেটা এডাল্টে এসে ফিক্স হয়ে গেছে, আপনি এখন স্থির। কিন্তু এটি সত্যি নয়, একজন প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তির মস্তিষ্কও ক্রমাগত চেঞ্জ হতে থাকে। যা আপনার মস্তিষ্ককে রুপ দেয় ও সেই রুপ ধরে রাখে তাকে বলা হয় প্লাস্টিক। অতএব আপনি যখন এডাল্ট হবেন তখনও আপনার অভিজ্ঞতা আপনার ব্রেন চেঞ্জ করবে এবং এই পরিবর্তনশীলতাকে ধরেও রাখবে।

এ ব্যাপারটা কেমন তা বোঝাতে আমরা লন্ডনের নারী ও পুরুষদের একটি দলের উদাহরণ দিতে পারি, যারা ট্যাক্সি ক্যাব ড্রাইভার। সম্পূর্ণ লন্ডন শহরের জ্ঞান দেয়ার জন্য এদেরকে চার বছর প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এ মেমরি খুবই জটিল। প্রত্যেকটি ক্যাব ড্রাইভারকে লন্ডন শহরের বিস্তৃত রাস্তা, সেগুলোর সমন্বয় ও স্থানান্তর মনে রাখতে হয়। এটি খুবই কঠিন কারণ আপনাকে এজন্য ৩২০ রুট, ২৫০০০ ইন্ডিভিজুয়াল স্ট্রেট, ২০,০০০ ল্যান্ডমার্ক এবং প্রত্যাশিত হোটেল, থিয়েটার, রেস্টুরেন্ট, অ্যাম্বাসি, পুলিশ স্টেশন, স্পোর্ট ফ্যাসিলিটি এবং একজন পেসেঞ্জার কোথায় যেতে চায় সবকিছু মনে রাখতে হয়। এ ধরণের থিওরিটিক্যাল ভ্রমণের জন্য শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন ৩-৪ ঘন্টা সময় মানসিকভাবে অপচয় করে। এ ধরণের ইউনিক মেন্টাল চ্যালেঞ্জ ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের নিউরোসায়েন্টিস্টদের আকৃষ্ট করেছিল। বিজ্ঞানীরা বিশেষভাবে আগ্রহী ছিলেন মস্তিষ্কের ক্ষুদ্র একটি অংশ হিপোক্যাম্পাসের প্রতি, যেটি প্রধান মেমরি, বিশেষ করে স্থানিক মেমরি। বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, যে সকল ড্রাইভার এ কাজটি করেন তাদের মস্তিষ্কের হিপোক্যাম্পাসের পেছনের অংশ ফিজিক্যালি অনেক বড় যা সম্ভবত তাদের স্থানিক মেমরি বাড়িয়ে তুলেছে।

London, England
লন্ডন সিটি জিওগ্রাফি রুট

বিজ্ঞানীরা আরো দেখেছেন যে, একজন ড্রাইভার যতবেশি সময় কাজ করে তার মস্তিষ্কের এ অংশটি তত বড়। এ পরীক্ষা দ্বারা গবেষকরা দেখিয়েছেন, প্রাক্টিসের ফলেও আমাদের ব্রেন চেঞ্জ হয়। ক্যাব ড্রাইভারদের উপর স্টাডি আমাদের বলে যে, বৃদ্ধদের ব্রেনও ফিক্স নয়। তাদের ব্রেনও পূনর্গঠিত হয় যা যে কোনো প্রশিক্ষিত চোখের নিকট ধরা পড়ে।

No description available.
লন্ডন ট্যাক্সিক্যাব ড্রাইভারদের হিপ্পোক্যাম্পাস

শুধুমাত্র ট্যাক্সিক্যাব ড্রাইভারদের মস্তিষ্কই নয়। আমাদের বিশ্বের অন্যতম একটি ব্রেন, বিশ শতকের বিস্ময় আলবার্ট আইনস্টাইনের মস্তিষ্কের ভেতরও এমন একটি চিহ্ন দেখা গেছে। তার মানে এই নয় যে, আমরা তার মস্তিষ্কের ভেতর তার প্রতিভার কোনো রহস্য খুঁজে পেয়েছি। কিন্তু তার ব্রেন এক্সপেরিমেন্ট করে যা জানা গিয়েছিলো তা হলো তার বাম আঙুলের সাথে সম্পৃক্ত ব্রেন এরিয়া অন্য এরিয়া থেকে অনেক প্রশস্ত। যা তার কর্টেক্সে একটি বড় ভাজ তৈরি করে যেটিকে বলা হয় “Omega Sign”! এটি অনেকটা গ্রীক সিম্বল ওমেগার মত। আইনস্টাইনকে ধন্যবাদ ভায়োলিন বাজানোর জন্য। এই ভাজ অভিজ্ঞ ভায়োলিন বাদকদের মধ্যে সম্প্রসারিত হয়। যারা নিবিড়ভাবে বাম হাতের আঙুল দিয়ে সুক্ষ্ম দক্ষতা বিকাশ করে। আর পিয়ানো প্লেয়ারদের মস্তিষ্কের উভয় হেমিস্ফিয়ারেই ওমেগা সাইন তৈরি হয় কারণ তারা দুটো হাতই ফাইন টিউনের জন্য ব্যবহার করে। মানুষের মস্তিষ্কের পাহাড় ও উপত্যকা ব্যক্তিভেদে বিভিন্ন কিন্তু সুক্ষ্ম কাজ আপনাকে ব্যক্তিগত ও অনন্য এক ব্যক্তিসত্তার প্রতিফলন প্রদান করে, এটা বদলে দেয় এই সত্যটি, আপনি কে! যদিও নগ্ন চোখে সব পরিবর্তন আমরা পর্যবেক্ষণ করতে পারিনা কিন্তু আপনি যা কিছু পর্যবেক্ষণ করেন সবকিছু আপনার মস্তিষ্কের ভৌত গঠন পরিবর্তন করে দেয়, আপনার জিনের এক্সপ্রেসন থেকে শুরু করে নিউরনের ভেতর অণুদের অবস্থান। আপনার উৎপত্তি, আপনার সংস্কৃতি, আপনার বন্ধুবান্ধব, আপনার কাজ এবং আপনার দেখা প্রতিটি মুভি, আপনার প্রতিটি কনভারসেশন, সবকিছু আপনার নার্ভাস সিস্টেমে ফুটপ্রিন্ট রেখে যায়। এই অদম্য, আণুবীক্ষণিক ইমপ্রেসনগুলি একত্রিত হয়ে আপনার “আপনি” যা তাকে তৈরি করে এবং আপনি কী হতে পারেন তার সীমা টেনে দেয়।

আরও পড়ুনঃ আইনস্টাইনের মস্তিষ্কের স্ট্রাকচার!

No description available.

তথ্যসূত্রঃ

hsbd bg