হেলিক্স-সাইকোলজিক্যাল সাপোর্ট
মূলপাতা বিজ্ঞানসাইকোলজি হেলিক্স-সাইকোলজিক্যাল সাপোর্ট

হেলিক্স-সাইকোলজিক্যাল সাপোর্ট

লিখেছেন অ্যান্ড্রোস লিহন
35 বার পঠিত হয়েছে
 
 
মানসিক সমস্যা নিয়ে হেলিক্স একটি কর্মসূচি শুরু করেছে। সাম্প্রতিক অনেকের মাঝেই মানসিক সমস্যা সাধারণ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, আমাদের সমাজের প্রতি চারজনের মধ্যে একজন মানসিক অথবা নিউরোলজিক্যাল সমস্যায় আক্রান্ত। এদের মধ্যে অনেকে আছে ভয়াভহ রকমের সাইকোসিস। সমস্ত বিশ্বব্যাপী ৪৫০ মিলিয়ন মানুষ সাম্প্রতিক বিভিন্ন রকম মানসিক সমস্যায় ভুগছে। মানসিক সমস্যার ট্রিটমেন্ট থাকলেও, প্রায় তিন ভাগের দুই ভাগ মানুষ কোনো হেলথ প্রফেশনালের কাছে মানসিক রোগের চিকিৎসা নেয়ার জন্য আসেন না। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরিসংখ্যান অনুযায়ী (৩০ জানুয়ারি ২০২০ পর্যন্ত), বিশ্বব্যাপী প্রায় ২৬৪ মিলিয়ন মানুষ ডিপ্রেসনে আছে, ২০ মিলিয়ন মানুষ সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত। আমেরিকার এক পরিসংখ্যানে দেখা যায় ৬৩ ভাগ পুরুষ একাকীত্ববোধ করে। একাকীত্ব আমাদের বর্তমান পৃথিবীর একটি সাধারণ ফিচার। সমস্ত পৃথিবীব্যাপি একাকীত্ব করোনা ভাইরাসের মতো ছড়িয়ে গেছে। অনেকে আছে এ একাকীত্বের কারণ জানেন না আবার অনেকে আছেন এ থেকে মুক্তির উপায় আবিষ্কার করতে ব্যর্থ হয়েছেন! BBC এর পরিচালিত ” একাকীত্বের এক্সপেরিমেন্টে” একবার প্রায় ৫৫,০০০ মানুষ অংশগ্রহণ করে, এ ধরণের বড় মাপের পরিসংখ্যান বিশ্বের ইতিহাসে ছিলো প্রথম। দেখা যায়, ১৬-২৪ বছর বয়সীদের মধ্যে ৪০ ভাগ মানুষ আছেন যারা একাকীত্ববোধ করেন। ৭৫ বছর বয়সীদের মধ্যে একাকীত্ববোধ করার প্রবণতা ১৫ শতাংশে এসে থেমে যায়। বিশ্বের প্রায় ২০ মিলিয়ন মানুষ ডিমেন্টিয়ায় আক্রান্ত এবং ৪৫ মিলিয়ন মানুষ বাই-পোলার ডিজ-অর্ডারে আক্রান্ত। US News এর তথ্যমতে WHO এর একটা পরিসংখ্যান বলছে, মানসিক রোগে বিশ্বের প্রথম স্থান অধিকার করেছে চায়না, ইন্ডিয়া রয়েছে দ্বিতীয় স্থানে, তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে আমেরিকা। কিন্তু দুঃখ্যজনক হলেও সত্য যে, মাল্টি মিলিয়ন মানুষ মানসিক সমস্যা আক্রান্ত হওয়ার পরেও ডাক্তারের সংখ্যা অত্যন্ত সীমিত। ২০১৪ সালের একটি পরিসংখ্যানে দেখা যায়, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসরত প্রায় ৪৫ শতাংশ মানুষের জন্য প্রতি ১০০, ০০০ জনে একজন সাইকিয়াট্রিস্ট রয়েছেন! এক লক্ষ রোগীর ট্রিটমেন্ট করছেন একজন মানসিক ডাক্তার! যেটা একইসাথে বিষ্ময়কর ও ভয়াভহ! যদি এক লাখ মানুষের মানসিক চিকিৎসা একজন ডাক্তার করেন তবে সে ডাক্তারের মানসিক সুস্থ্যতা নিয়েও প্রশ্ন জাগে! তার মানে দেখা যাচ্ছে, মানসিক স্থাস্থ্যের প্রতি বিশ্বব্যাপী একটি সার্বজনীন অনিহা কাজ করছে। ডিপ্রেসন, একাকীত্ব ও উত্তেজনায় আক্রান্ত রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে চায়না, ইন্ডিয়া, ইউ-এস, ব্রাজিল, রাশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, পাকিস্তান, নাইজেরিয়া, বাংলাদেশ ও মেক্সিকো অন্যতম। এর মধ্যে চায়না, ইন্ডিয়া,ইউ এস, ব্রাজিল, বাংলাদেশ, রাশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, নাইজেরিয়া ও পাকিস্তানে ডিপ্রেসন বেশি দেখা যায়। ডিপ্রেসন আক্রান্ত রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ পঞ্চম এবং উত্তেজনায় আক্রান্ত রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে চায়না প্রথম, ইন্ডিয়া দ্বিতীয় ও বাংলাদেশ সপ্তম! হেলিক্সের গবেষক দল মানুষের একাকীত্ব ও হতাশা নিয়ে চিন্তিত। আমরা সায়েন্টিফিক মোটিভেশন ও মেডিকেয়ারের মাধ্যমে মানুষের মধ্যে পরিপূর্ণ মানসিক সুস্থ্যতা আনয়নের পক্ষপাত করি। হেলিক্স-সাইকোলজিক্যাল সাপোর্ট 
 
 
                                                         From US News
 
 
 
 
 
আমরা আপনাদের মনের সমস্যাগুলো শুনতে চাই, একজন শ্রোতা হয়ে আপনাদের ভেতরের গভীর মানসিক জটিলতাগুলো বুঝতে চাই। আর এ জন্য কিছু নির্দিষ্ট প্রয়োজনীতা আছে যা আমাদের জানতে হবে। আমরা সপ্তাহের সপ্তম দিন হেলিক্সের সাইকোলজি কর্ণার থেকে মানসিক সমস্যা নিয়ে আলোচনা করবো। আপনাদের মধ্যে যারা জটিল মানসিক সংকটে ভুগছেন তারা যেকোনো প্রশ্ন আমাদেরকে ইমেইল করতে পারেন, আপনাদের প্রশ্নের ধরণের উপর ভিত্তি করে Zoom অথবা Messenger Call আপনাদের সাথে আমরা আলোচনা করবো। আর যদি প্রশ্নগুলো অনেক বেশি ব্যক্তিগত না হয় তবে আপনার সমস্যাগুলো আমাদের গ্রুপেও জানাতে পারেন। প্রশ্ন উত্তরের কিছু প্রয়োজনীয় নিয়মাবলি থাকবে-
 
 
 

১)আপনাকে শুধুমাত্র নির্দিষ্টভাবে প্রকৃত মানসিক গোলযোগটি ডিফাইন করতে হবে এবং সে সমস্যাটি কেনো তৈরি হয়েছে এবং কিভাবে এটা থেকে মুক্তি পাওয়া যায় সে পদ্ধতি অনুসন্ধানের জন্য আমাদের সহযোগী হতে হবে।

২) অতি-ব্যাক্তিগত কোন প্রশ্ন করা যাবে না। আক্রমণাত্মক বা উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়ে কোন আচরণ করা যাবে না!

৩) আমরা আপনার মানসিক সমস্যার কথা শুনবো, এবং এর পেছনের সামাজিক, মানসিক, জিন ও নিউরোলজিক্যাল কারণগুলো উদঘাটন করতে সাহায্য করবো। শনি থেকে সোমবার পর্যন্ত আপনার প্রশ্ন করার সময় নির্দিষ্ট করা থাকবে! শুক্রবার রাত ৮.০০ PM থেকে রাত ১২.০০ PM পর্যন্ত কমপক্ষে চার জনের সাথে তাদের মানসিক সমস্যাগুলো নিয়ে একা বা গ্রুপিং করে আলোচনা করা হবে! এটা মনে রাখবেন যে আমাদের কাজ আপনার মানসিক সমস্যার কথা শোনা ও সেগুলোর সম্ভাব্য সমাধান প্রেজেন্ট করা এবং প্রয়োজনীয় মোটিভেশন! কিন্ত এর মানে এই না যে আমরা আপনার মানসিক সমস্যা পরিপূর্ণভাবে ভালো করে দিতে পারবো অথবা এর সাথে সম্পৃক্ত কোন মেডিসিন সরবরাহ করতে পারবো। তবে হ্যা, কিছু ক্ষেত্রে আপনাকে সম্ভাব্য মেডিসিনের কথা জানানো হবে। তবে ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোনো মেডিসিন নেয়া যাবে না!
 
 
 
৪) ভূত,জিন বা পেত্মী দ্বারা যদি কেউ আক্রান্ত হয় তবে বৈজ্ঞানিকভাবে তাকে এর অসারতা বোঝানোর চেষ্টা করা হবে এবং এর পেছনে যদি নিউরোলজিক্যাল কোন কারণও থাকে আমরা তা উদঘাটন করে তাকে বা তার পরিবারকে জানানোর চেষ্টা করবো। এ জন্য পুরোপুরিভাবে বিশ্বস্ততা নিয়ে আমাদের সাথে বসতে হবে।
 
 
৫) ঈশ্বর বা ধর্ম সংক্রান্ত কোনো মানসিক সমস্যা দেখা গেলেও আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন!
 
 
৬) জামার এক পরিসংখ্যানে, সমাকামীদের বিভিন্ন মানসিক সমস্যা উঠে এসেছে যা তাদের জানা প্রয়োজন ও প্রয়োজন পর্যাপ্ত চিকিৎসা। আমরা যেকোনো মানসিক সমস্যার মুখোমুখি হলে তাদেরকে বিস্তারিত বর্ণনা সহ আমাদের সাইকোলজি কর্নারে জানানোর জন্য অনুরোধ করবো!
 
হেলিক্সের সাইকোলজি কর্নার আপনাকে শুনবে, আপনার সে সকল কথা যা আপনি অন্য কাউকে শেয়ার করতে পারেন না, শেয়ার করলে অপমানিত হতে হয় অথবা দূর্বলতার সুযোগ নেয়- যা আপনার ভেতর মানসিক গোলযোগ তৈরি করে রেখেছে, আমরা আপনাকে সেখান থেকে বেরিয়ে আসতে সাহায্য করবো! আমাদের এ উদ্যোগ কোনো আর্থিক বা মানবিক উদ্দেশ্যে না। মূলত, আমরা গবেষণার স্বার্থে এ কর্মসূচি হাতে নিয়েছি। আমরা এ প্রক্রিয়ায় মানসিক সমস্যার একটি পরিসংখ্যান তৈরি করছি। আশা করি, এ ব্যাপারে সবাই আমাদের আন্তরিকভাবে সাহায্য করবেন।।হেলিক্স প্রসঙ্গ
 
আমাদের কাছে আপনার মানসিক রিপোর্ট পাঠানোর ঠিকানা-
 
 Gmail-
 
hyperspacebd@gmail.com
 
 
 

আরও পড়ুন

Leave A Comment...

হাইপারস্পেস
চিন্তা নয়, চিন্তার পদ্ধতি জানো...!