ক্যাফেইনের ক্ষতি নিয়ে নাসার স্টাডি

ক্যাফেইনের ক্ষতি নিয়ে নাসার স্টাডি

১৯৮০ সালে NASA মাকড়শাকে ভিন্ন ভিন্ন ড্রাগ দিয়ে অবজার্ভ করেছিলেন যে , সে ভিন্ন ভিন্ন ড্রাগের প্রভাবে ঠিক কিভাবে তার ওয়েব তৈরি করে। এ সকল ড্রাগের মধ্যে ছিল এলএইচডি , স্পিড, মারিজুয়ানা এবং ক্যাফেইন। গবেষকরা দেখেছিলেন এ ড্রাগগুলো প্রদান করার পর মাকড়শার পক্ষে সাধারণ ও যৌক্তিক জাল তৈরি করাটা কতটা অসম্ভব হয়ে উঠে! সবচেয়ে ভয়ানক ব্যাপার হলো, ক্যাফেইন নেয়ার পরও তারা লজিক্যালি তাদের জাল বিস্তার করতে পারেনি।

ক্যাফেইনের ক্ষতি নিয়ে নাসার স্টাডি

ক্যাফেইনের ক্ষতির দিক এখন পরীক্ষামূলকভাবেই প্রমাণিত।আপনি হয়তো ভাবছেন, এক কাপ কফির মধ্যে যে পরিমাণ ক্যাফেইন থাকে তার প্রভাব আর কতটুকুই? আর এ জন্য ঘুমকে অবদমন করতে আমরা ঠিকই ক্যাফেইন ব্যবহার করি । ঘুমের সময় আমাদের ব্রেনে এডিনোসেন নামক একপ্রকার কেমিক্যাল তৈরি হয়। একজন ব্যক্তি যত বেশি জেগে থাকবেন তার মস্তিষ্কে ততবেশি এডিনোসেন পুঞ্জিভূত হতে থাকবে। এডিনোসেন হলো একটি কেমিক্যাল ব্যারোমিটার যা নির্ণয় করে আপনি সকালে জাগ্রত হওয়ার পর থেকে কতক্ষণ জেগে আছেন। এডিনোসেন বৃদ্ধির একটি প্রভাব হলো এটি আপনার ঘুমের আকাঙ্খা বাড়িয়ে দেবে। এটাকে স্লিপ প্রেসার বলা হয়। এটি হলো সেকেন্ড ফোর্স যা নির্ণয় করে কখন আপনি ঘুম ঘুম অনুভব করবেন এবং বলবে, আপনার এখন বিছানায় যাওয়া উচিত! যদি আপনি সারারাত জেগে থাকেন এবং এ মুহূর্তে আপনার এ লেখাটি পড়ার সময় ঘুম এসে যায় তবে বুঝবেন এটি আর কিছুই নয় এডিনোসেন । এই এডিনোসেন আপনার মস্তিষ্কের Wake-Promoting এরিয়াকে বন্ধ করে দেয় এবং ঘুমকে প্রমোট করে সে এরিয়ায় উদ্দীপনা সৃষ্টি করে। এ কেমিক্যাল স্লিপ প্রেসারের কারণে, যখন এডিনোসেন সর্বোচ্চ পুঞ্জিভূত হয় তখন ঘুমের জন্য এক অপ্রতিরোধ্য তাগিদ সৃষ্টি হয়। এ ঘটনাটি অধিকাংশ ব্যক্তির সাথেই ঘটে যারা ১২ থেকে ১৬ ঘন্টা জেগে থাকে। আপনি আর্টিফিশিয়ালি এডিনোসেনের ঘুমের সিগনাল মিউট করে দিতে পারেন। এমন একটি কেমিক্যাল ব্যবহার করে যা আপনাকে সতর্ক ও জাগ্রত করে দেবে। আর সেটি হলো এই ক্যাফেইন।

ক্যাফেইনের ক্ষতি নিয়ে নাসার স্টাডি

ক্যাফেইন সাইকোএকটিভ ওয়ার্ল্ডে বহুল ব্যবহারিত একটি উদ্দীপক, এটি খাবারের সাপ্লিমেন্ট নয়। তেলের পর গ্রহে এ জিনিসটি সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করা হয়। এ ক্যাফেইন সফলতার সাথে এডিনোসেনের সাথে যুদ্ধ করে। একবার যদি ক্যাফেইন এ রিসিপ্টর দখল করে, যাইহোক, এটি এডিনোসেনের মত সেগুলোকে স্টিমুলেট করেনা। ক্যাফেইন শুধুমাত্র এডিনোসেনকে ব্লক করে দেয় এবং খুব কার্যকরীভাবে এ রিসেপ্টরগুলো নিষ্ক্রিয় করে ফেলে, তার কাজ অনেকটা মাস্কের মতো। এটা অনেকটা এমন যে আপনি আপনার কানের ভেতর আঙুল ঢুকিয়ে শব্দের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছেন। এ রিসেপ্টরগুলো হাইজ্যাক ও দখল করার মাধ্যমে ক্যাফেইন ঘুমের সিগনাল ব্লক করে যা সাধারণত এডিনোসেনের মাধ্যমে মস্তিষ্কের সাথে যোগাযোগ করে।। আর এভাবে ক্যাফেইন আপনাকে সতর্ক ও জাগ্রত থাকার জন্য প্ররোচিত করে। আপনি যদি সকাল ৭ঃ ৩০ মিনিটে এক কাপ কফি সেবন করেন তবে ক্যাফেইন আপনার মস্তিষ্কের টিস্যুতে ১ঃ৩০ মিনিট পর্যন্ত আবর্তিত হবে। তার মানে ১ঃ৩০ মিনিটের ভেতরও আপনি আপনার ব্রেন থেকে ক্যাফেইন পরিস্কার করতে পারবেন না। সারারাত আপনি ঘুমাতে পারবেননা, ব্রেন নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে ক্যাফেইনের বিপক্ষে যুদ্ধ করে যাবে। অধিকাংশ মানুষই জানেনা সামান্য পরিমাণ ক্যাফেইনকে অতিক্রম করতে কি পরিমাণ শক্তির প্রয়োজন! ক্যাফেইন পরিস্কার করার জন্য লিভারের এনজাইম প্রয়োজন ( এ এনজাইমটির নাম সাইটোক্রোম P4501A2) । যে এনজাইম সময়ের সাথে আস্তে আস্তে হ্রাস পেতে থাকে।

এটা নির্ভর করে জেনেটিক্সের উপর। কিছুকিছু মানুষের খুবই কার্যকরী এনজাইম রয়েছে যা ক্যাফেইনকে দ্রুত মুছে ফেলতে পারে, যা লিভারকে অনুমোদন দেয় দ্রুত রক্তস্রোত থেকে এটি পরিস্কার করতে ( আমি সম্ভবত তাদের একজন) । এ ধরণের মানুষ ডিনারের সাথে এসপ্রেসো কফি পান করার পরও মধ্যরাতে অত্যন্ত দ্রুত ঘুমায়, তাদের কোনোপ্রকার সমস্যাই হয়না। কিন্তু কিছুকিছু মানুষের ক্যাফেইন ক্লিন করার এনজাইম খুবই ধীরগতি সম্পন্ন। একই পরিমাণ ক্যাফেইন পরিস্কার করতে তার অনেক বেশি সময় প্রয়োজন। সকাল বেলার এক কাপ কফি আপনার ব্রেনে প্রায় সারাদিন থাকে, আর ঐ ব্যক্তি যদি সন্ধ্যায় আবার ক্যাফেইন নেয় তবে তার পক্ষে আর ঘুমানো সম্ভব নাও হতে পারে৷ বয়সের কারণেও ক্যাফেইন ক্লিয়ারেন্স স্পিড কমে যেতে পারে। বৃদ্ধ মানুষদের শরীর থেকে ক্যাফেইন দূর করতে অনেক দীর্ঘ সময় লাগে আর এ জন্য বৃদ্ধ বয়সে ক্যাফেইন আপনার ঘুমে মারাত্মক বিপর্যয় তৈরি করে। এছাড়া “ক্যাফেইন ক্রাশ” বলতে খুবই নোংরা একটা বিপর্যয় আছে। (ভিন্ন ভিন্ন স্লিপ সাইকেলের বিবর্তন কেন হলো?)

আমরা জানি ক্যাফেইন আপনার মস্তিষ্কের এডিনোসেনকে ব্লক করে দেয় আর এটি তখনই তৈরি হয় যখন আপনার ব্রেন প্রচুর ক্লান্ত থাকে। আপনি যখন কফি পান করেন, আপনার ব্রেন এডিনোসেন উৎপাদন করা কিন্তু মোটেও বন্ধ করে দেয় না। আর এ জন্য যখন ক্যাফেইনকে আপনার লিভার এনজাইম একটা সময় মুছে দেয়, তখন এডিনোসেনের বন্যা তৈরি হয়, যা আপনাকে বিশ্রিভাবে ক্লান্ত করে তোলে। আপনার ব্রেন জানেওনা যে আপনি যখন ক্যাফেইন নিয়েছেন তখন ক্যাফেইন শুধু এডিনোসেনের মুখে মাস্ক পরিয়ে দিয়েছে কিন্তু এর প্রোডাকশন বন্ধ করতে পারেনি। এতে করে এডেনোসিন ফুলে উঠবে ঢেউয়ের মতো। যখন আপনার লিভার ক্যাফেইনের ব্যারিকেড ভেঙে ফেলবে আপনি অত্যন্ত জঘন্য একটি প্রতিক্রিয়া অনুভব করবেন। আপনি কয়েক ঘন্টা আগে ক্যাফেইন নেয়ার পূর্বেও ঘুমের ভাব অনুভব করেছেন। কফি পান করার পর, আপনার এডিনোসেনের সামনে ক্যাফেইন একটি দেয়াল তুলে দিয়েছিল, কিন্তু দেয়ালের ওপাশে এটি ক্রমবর্ধমানভাবে বেড়েই চলেছিল। যখন লিভার দেয়ালটি এনজাইম দিয়ে ফাটিয়ে দেয়, এবার কফি + এক্সট্রা এডিনোসেন এ কয়েকঘন্টায় জমে অপেক্ষা করতে থাকে এটি দ্রুত পুঞ্জিভূত হতে থাকে। যখনই রিসিপ্টর থেকে ক্যাফেইনগুলো পরিস্কার হয়ে যায় তখন এডিনোসেন রিসেপ্টরকে মসৃণ করে তোলার জন্য দ্রুত ছুটে আসে। আর এর ফলে আপনার ঘুমের তাড়না আরও বহুগুণ ট্রিগার হয়। আপনি যদি এবার আবারও ক্যাফেইন নেন, এটি আবার এডিনোসেনকে আগের স্থলে ফিরিয়ে নেবে, আর এ চক্র চলতেই থাকবে আর একটা সময় এতবেশি এডিনোসেন যোগ হবে যে আপনি কোনোভাবেই জেগে থাকতে পারবেন না! আর এটি আপনার মস্তিষ্কের উপর কী ধরণের প্রভাব ফেলতে পারে তা অনুমান করার জন্য মাকড়সার উপর নাসার করা এক্সপেরিমেন্টটির উপর আর একবার চোখ রাখুন।।

ক্যাফেইনের ক্ষতি নিয়ে নাসার স্টাডি

তথ্যসূত্রঃ

hsbd bg